ABN News

ফের উত্তপ্ত দিল্লি : মৃত ৭, গ্রেফতার শতাধিক, নামল আধাসেনা

ফের উত্তপ্ত দিল্লি : মৃত ৭, গ্রেফতার শতাধিক, নামল আধাসেনা

নিজস্ব প্রতিনিধি, এবিএন :- ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠল দিল্লি। জাফরাবাদ, মৌজপুর সহ একাধিক এলাকায় দুষ্কৃতীদের ব্যাপক তান্ডব চলছেই। সি এ এ-এন আর সি”র বিরুদ্ধে মহিলাদের ধরনা চলছিল। এর মধ্যেই হুঙ্কার শুরু হয় হিন্দুত্ববাদী একাধিক সংগঠনের কর্মকর্তাদের। মুখে গতকাল মৌজপুড়ে সি এ এন আর সি পক্ষে শ্লোগান উঠেছিল, উঠেছিল জয় শ্রীরাম ধ্বনিও হঠাৎ করেই উত্তপ্ত হতে থাকে বিভিন্ন অঞ্চল, শুরু হয় ইট পাথর ছোরা, দোকানে গাড়িতে আগুন লাগানোর ঘটনা প্রথমে পুলিশ এসে অবস্থার সামাল না দিতে পারলে ডাক পড়ে আধাসেনা ততক্ষণে পাথরের আঘাতে মারা যান এক পুলিশ কনস্টেবল। মারমুখী দুষ্কৃতীদের সামাল দিতে জারি হয় ১৪৪ ধারা।

আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে নেওয়া শুরু হয় পদক্ষেপ। চলে দেদার লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাস, গুলি। আগুন নেভাতে ছুটে আসে দমকল বাহিনী (এখনো পর্যন্ত যা যথেষ্ট নয় বলেই স্থানীয় সূত্রে দাবি)। আতঙ্কিত হয়ে পড়ে বিভিন্ন এলাকার সাধারণ মানুষ। যানবাহন চলাচল বন্ধ। বিপদে পড়ে বহু মানুষ। নাছোড় আক্রমণকারীদের অশান্তি ছড়াতে দেখে ধাওয়া করে পুলিশ ও আধাসামরিক বাহিনী যৌথভাবে। যদিও সাময়িক পিছু হটার পর আক্রমণকারীরা আজ ফের তান্ডব চালাতে শুরু করলে আধাসামরিক বাহিনী বিভিন্ন এলাকায় মোতায়েন করা হয় দিল্লি পুলিশের তরফে এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এর নির্দেশ। খবরে প্রকাশ, গতকাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বৈঠক ডাকেন দিল্লির হালচাল দেখে। তাঁর সাথে দেখা করতে যান দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। আজ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, এই তান্ডবলীলা বন্ধ করতে তাঁরা কেন্দ্রীয় সরকারের সাথে যৌথ ভূমিকা নেবেন।

আজ সকালেও ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগের ঘটনা একেকটি এলাকায় ব্যাপক মাত্রায় ঘটে বলে সংবাদ সংস্থার খবরে জানা গেছে। দিল্লিতে অন্তত ৭ জনের মৃত্যু ঘটেছে, আহতের সংখ্যা বেশকিছু। রাজ্যের উপরাজ্যপাল থেকে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী এলাকায় শান্তি ফিরিয়ে আনার আবেদন জানিয়েছেন। তার দাবি রাজ্যে অর্থাৎ দিল্লিতে আশপাশের অঞ্চল থেকে বহু মানুষ ঢুকে পড়ছে। অবিলম্বে সীমানায় দুষ্কৃতীদের আটকাবার ব্যবস্থা করা উচিত। প্রসঙ্গত গতকালই শাহিনবাগের আন্দোলনকারীরা সুপ্রিম কোর্টের নির্দিষ্ট মধ্যস্থতাকারীদের সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন যে সিএএ-এনআরসি বন্ধ করার কথা কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষণা না করলে তাঁরা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। এদিকে বিজেপির তরফে এ ব্যাপারে কোন, ভাবনা চিন্তার অবকাশ নেই বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছেন বিজেপির দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা। যদিও এনআরসি রাজ্যে রাজ্যে চালু হবেই বলে মন্তব্য করেছেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিই।

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *