ABN News

অসহায় ক্যান্সার আক্রান্ত বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের পাশে পার্পেল !

অসহায় ক্যান্সার আক্রান্ত বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের পাশে পার্পেল !

নিজস্ব প্রতিনিধি, এবিএন :- বাংলা তথা ভারতবর্ষে অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর মানসিকতা আজকের যুগের মানুষের নেই বলে অনেকেই জানতেন। একটি উল্টোটাই আজকেরে আমরা দেখলাম যা নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাস যোগ্য নয়।মানুষের সেবা করাই যে পরম ধর্ম সেটা বুঝিয়ে দিয়েছেন ডক্টর যোষিতা ঘোষাল।ডাক্তারদের প্রতি কিছু মানুষের ভুল ধারনা রয়ে গেছে, ডাক্তার মানে যে ভগবান হতে পারে সেটা প্রমাণ করিয়ে দিচ্ছেন ডক্টর যোষিতা ঘোষাল।ছোট থেকে মানুষ সেবা দেখতে দেখে অভ্যস্ত তিনি, তার বাপের বাড়ি সহ মামার ভাবি ফ্যামিলি এবং শ্বশুরবাড়ি সবাই ডক্টর ।বয়স্কদের চিকিৎসা করতে করতে তিনি অনুভূতি করেছিলেন, যে অসহায় মানুষটা আজকেরে কতটা মানসিক দিক দিয়ে আরো বিপর্যস্ত।শুধু চিকিৎসা নয় এর সাথে সাথে মানসিক আনন্দ ও ব্যায়াম করলে হয়তো মানুষটা আরেকটু বেশি সুস্থ থাকতে পারবে। তার পথ চলা শুরু হয়েছিল, ডক্টর যোষিতা নিজেই মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। অসহায়-দুস্থ বৃদ্ধ ক্যান্সার রোগীদের কাছে আজ তিনি ভগবান তুল্য ব্যক্তি।বাংলায় সমস্ত বৃদ্ধ দের কে নিয়ে আজ শুরু করেছেন যোধপুর পার্কে নারী সেবা কেন্দ্রে পার্পেল তাই বয়স্কদের নিয়ে এক মনোঙ্গ অনুষ্ঠান।

নিবেদন করলো – নব আনন্দে জাগো, যার সঙ্গে পরিচালনায় ছিলেন শ্রীমতি জয়িতা ঘোষাল, এছাড়াও ছিলেন মনিকা বর্ধন, জয়িতা বসু, সঙ্গীতা পাল ও অরুনাভ বর্ধন যা শুরু হলো বিশিষ্ট সমাজসেবী মৌষুমী রায়ের উদ্বোধনী সংগীতে সম্পাদক শিমুল ছায়া । এই অনুষ্ঠান ৬০রে ঊর্ধ বয়স্করা গান,শ্রুতিনাটক ও নৃত্যের তালে তাল দিয়ে অংশগ্রহণ করলেন – যাকে পরিভাষায় বলে গান ও নাচের থেরাপির মাধ্যমে । গান গাইলেন ৮৫ বছর বয়স্কা হাঁসি ঘোষ আর জয়ন্ত কুমার ঘোষাল তাঁদের সুমধুর কন্ঠে।গানের সাথে নৃত্যানুষ্ঠানে অংশ নিলেন ১৬ জন বয়স্কা মহিলা। তাঁদের উৎসাহ আর আনন্দের ছটা ছিল চোখে মুখে। পার্পেলের তরফে সমগ্র অনুষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনা ও কোরিওগ্রাফি করলেন ডাঃ যোশিতা ঘোষাল ব্যানার্জি । তাঁকে নৃত্য পরিচালনায় সহযোগিতা করলেন শকুন্তলা ঘোষ হাজরা,অম্বালিকা রায় ও অর্পিতা দত্ত। বক্তব্য রাখলেন বড়িষ্ঠ নাগরিক মঞ্চের সেক্রেটারি ও বয়স্কদের প্রতিষ্ঠান, দিনান্তের প্রতিষ্ঠাতা শান্তি রঞ্জন চক্রবর্তী।অনুষ্ঠানটির সমাপ্তী হলো পার্পেলকে অগ্রগতির পথে সাহায্যকারী গুনীজন ও চিকিৎসকদের সম্বর্ধনা জানিয়ে , তাদের মধ্যে ছিলেন বিশিষ্ট অর্থোপেডিক চিকিৎসক মিস্তুন ব্যানার্জি , অঞ্জলি ফাউন্ডেশনের কর্ণধার রণধীশ চৌধুরীর উপস্থিতিতে। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ইন্ডিয়ান জার্নালিস্ট এন্ড অল এডিটর জাতীয় সাধারণ সম্পাদক মৃত্যুঞ্জয় সরদার, আসিয়ানের জাতীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সমীর দাস মহাশয়।

বয়স্ক মানুষদের জীবনধারার বিভিন্ন সমস্যার কথা ভেবে পার্পেল আত্মপ্রকাশ করেছে অঞ্জলি ফাউন্ডেশন এর হাত ধরে . ৫ই ডিসেম্বর,২০১৮ সালে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন। বয়স্ক হওয়া শুধুমাত্র একটা বয়সের সংখ্যা। তার জন্য হয়তো কিছু শারীরিক সমস্যা থাকবে, কিন্তু মানসিক সমস্যা গুলি বয়স্কদের বেশি বিব্রত করে। একাকিত্বতা, বিষন্নতা আর অবহেলার বিভিন্ন দিক তাঁদের জীবনকে দুর্বিসহ করে তোলে। তাই পার্পেল বয়স্কদের জীবনের এই দুটো দিক – অর্থাৎ শারীরিক ও মানসিক প্রতিকূলতাকে অতিক্রম করার জন্য যেমন প্রতি মাসে স্বাস্থ্য শিবির ও ডিমেনশিয়া সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির এবং চিহ্নিতকরণের (dementia screening) প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে, তেমনি বয়স্কদের জীবনকে আনন্দে রাঙ্গিয়ে দেওয়ার জন্যে নবতম প্রয়াসে উদ্যোগী হয়েছে।

administrator

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *